1. admin@dineralo24.com : Dineralo24 : Md Hafizul Islam
  2. hmdkamal2001@gmail.com : Md Kamal Hossain : Md Kamal Hossain
  3. ahmedsiam409@gmail.com : Siam Hossain : Siam Hossain
পরিপাক তন্ত্রের রোগ সমুহ - দিনের আলো ২৪
মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ১০:০৮ পূর্বাহ্ন

পরিপাক তন্ত্রের রোগ সমুহ

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন, ২০২২
  • ৫০ বার পঠিত
পরিপাক তন্ত্রের রোগ সমুহ
পরিপাক তন্ত্রের রোগ সমুহ

পরিপাক তন্ত্র : মানুষের মুখ হইতে পায়খানার দ্বার (পায়ু) পর্যন্ত বিস্তৃত খাদ্য নালীটিতে পরিপাকতন্ত্র বলে এবং এর
সাথে সম্পর্কযুক্ত অঙ্গসমূহ যেমন- পিত্তথলী (Gallbladder) অগ্ন্যাশয় (Pancreas), লিভার (Liver) ইত্যাদি।
প্রথমত : মুখ গহ্বর (Oral Cavity) ও পেট (Abdomen)
(ক) মুখগহ্বর (Oral Cavity) : (এখানে যাহা লক্ষণীয় বিষয় দেখিতে হয়)
১। মুখে গন্ধ (Odour)- দুর্গন্ধ/স্বাভাবিক
২। জিহ্বা (Tongue)- শুক্না/কোন দাগযুক্ত/স্বাভাবিক।
৩। দাঁত (Teeth)- সংখ্যা/আকৃতি/গঠন
৪। ঠোঁটদ্বয় (lips) – স্বাভাবিক/ কোনদিকে বাঁকানো/অস্বাভাবিক
৫। গালের ভিতরে (Inner Layer of cheek)- সাধারণ/স্বাভাবিক/অস্বাভাবিক
৬। তালু (Palate)- (শক্ত ও নরম দুইটিই) স্বাভাবিক/অস্বাভাবিক
৭। টনসিলদ্বয় (Tonsils)- অস্বাভাবিক/স্বাভাবিক
৮। মাড়ি (Gum) – স্বাভাবিক/ বেশি গর্তযুক্ত/অস্বাভাবিক।
এইক্ষেত্রে একটা টর্চ এবং টাং ডিপ্রেসার (Tongue Depresser) দরকার হয়।
(খ) পেট- (Abdomin) : ১। অবলোকন (Inspection) : রোগীকে চিৎ হয়ে সোজাভাবে শোয়াতে হবে।
দু’পাশে হাত এবং মাথার নীচে বালিশ থাকিবে। রোগীর পেট ভালভাবে দেখার জন্য পেটের উপরের কাপড়
সরাতে হইবে।
(i) আকৃতি (Shape and size) : স্বাভাবিক, স্ফীত না চুপসে যাওয়া।
(ii) স্পন্দিত কম্পন (Visible pulse) : আছে/নাই/চলাচল করে/ করে না।
(iii) অনুমিত পিণ্ড (Visible mass) : আছে/নাই/চলাচল করে/করে না।
(iv) নাভী (Unbliens) : ভেতরে বসানো/বাহির হওয়া।
(v) উদরচ্ছেদের নড়াচড়া (Movemement of abdominal wall) : স্বাভাবিকভাবে শ্বাসপ্রশ্বাসের
সহিত উঠানামা করে। তবে কোন ভাবে মধ্যচ্ছদা (Daphragm) পক্ষাঘাত গ্রন্থ (Paralyses)
হইলে শ্বাস-প্রশ্বাসের নড়াচড়ার পরিবর্তন হয় অর্থাৎ শ্বাসের সময় নামে প্রশ্বাসের সময় উঠে।
(vi) উদরপৃষ্ঠ (Abdominal surface) : কোন শিরা বা উপশিরা স্পষ্টভাবে ফুলিয়া উঠে কিনা। স্ত্রী
লোকদের মত দাগ (Striae) দেখা যায় কিনা। (পুরুষের ক্ষেত্রে)।
২) অনুভব (Palpation) : রোগীকে চিৎ করিয়া ওয়াইয়া ধীরে ধীরে শ্বাস নিতে এবং শরীর ঢিলা রাখার জন্য
বলিতে হয়। কোথাও ব্যথা থাকিলে সবশেষে সেখানে হাত দিতে হইবে।
(i) কাঠিণ্য (Rigidity) : দেখিতে হইবে-ফাঁপা/শক্ত/নরম/ কোন টিউমার আছে কিনা।
অসহনশীলতা বা বেদনা অনুভূত (Tenderness) – আছে/নাই/খুবই বেশি।
(ii)যে সকল রোগে পাওয়া যায়- (চাপদিলে ব্যথা লাগে) এ্যাপেন্ডিসাইটিস (Appendicitis); এ ম্যাকবার্নিস
(Mechburney’s) পয়েন্টে, পাকস্থলী/ডিওডেনামের ক্ষতে (Duodenal ulcer & Gastic
ulcer) নাভির সামান্য উপর হইতে, উপরের দিকে যকৃত ও পিত্তথলি (Liver and GAll baldder)
বুকের ডান দিক হইতে কিছুটা পেটের নীচের দিকে (Right hypocondium)-এ অনুভূত হয়।
(iii) অনুভূত শক্ত পিন্ড (Plapable mass) : এইক্ষেত্রে চিকিৎসককে বাম হাত কপালে রাখিয়া রোগীকে
চিৎ অবস্থা হইতে উঠিতে বলা হয় এবং ডান হাত দিয় পেট টিপিয়া দেখিতে হয়।
শক্ত/নরম/নড়াচড়া করে/করেনা/ব্যথা হয়/হয় না।
সকল ক্ষেত্রেই মনে রাখিতে হইবে নাভীর (Umblins region) ধারে কোন শিরা ফোলা বা স্ফীত থাকিলে
এবং রক্তপ্রবাহ দেহের নিচের দিক হইতে উপরে দিকে উঠিতে থাকিলে ধারণা করিতে হইবে (Inferior
vanacava) হৃৎপিণ্ডের নীচের দিকে নিম্ন মহাশিরায় কোন প্রকার প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হইয়াছে।
যকৃতের বৃদ্ধি পায়, প্রদাহ হয় না (Tenderles Enlarged liver) :
(ক) যকৃতের ক্যানসার (Liver Cancer)
(খ) সিরোসিস (Cirrhois of liver)
(গ) হজকিনস রোগ (Hodgkins disease)
(ঘ) পিত্তথলির মুখ বন্ধ হইলে (Obstruction of bileduct)
(ঙ) লিউকোমিয়া (Leukaemia)
(চ) মারাত্মক যৌন রোগ বা দীর্ঘস্থায়ী ম্যালেরিয়া রোগে (Severe Venaral and Charonic
malarial disease)
প্রদাহ হয় :
(ক) হেপাটাইটিস (Viral or Anaemibial hepatitis) হইলে
(খ) যকৃতে পুজাক্তি (Hepatic Abscess)
(গ) এ্যাকটিনোমাইকোসিস (Actinomicosis)
(ঘ) আবদ্ধতাজনিত হৃদরোগে (Congestive Cardiac Failure) বা, C.C.F. এই ক্ষেত্রে যকৃতে
(Liver) রক্ত জমিতে থাকে।

আইটি সেক্টরকে এগিয়ে নিতে কাজ করছে হাফিজুল ইসলাম
প্লিহার অবস্থানের অনুভূতি (Spleen Palpation) : প্লীহা অনুভূত হয়/ হয় না/প্লীহার বৃদ্ধিকে স্পিলিনোমেগালি
(Spleenomegaly) বলে । প্লীহা বৃদ্ধি হয়—
১।অল্প বৃদ্ধি (Mild Spleenomegaly) : টাইফয়েড (Typhoid), ব্যাকটেরিয়াল এন্ডাকারডাইটিস
(Bacterial Endocardilitis), সেপ্টিসেমিয়া (Septicemia) রোগে।
২। মাঝারি বৃদ্ধি (Moderate Spleenomegaly) : পলি সাইথেমিয়া, সিরোসিস, টিউমার, প্লীহার যক্ষ্মা,
ভয়াবহ রক্তাল্পতা (Hemolytic anaemia), লিউকেমিয়া, ইনফেকশাস মনোনিউক্লিয়াসিস (Infectious
Mononucleosis) ইত্যাদি।
৩। অতিবৃদ্ধি (Massive Spleenomegaly) : কালাজ্বর, লিউকোমিয়া, এক্সট্রা হেপাটিক, পোর্টাল
হাইপার টেনশন ইত্যাদিতে।
শব্দানুমান (Percussion) : সাধারণভাবে পেটে টোকাদিয়া পরীক্ষা করিলে এক রকম শব্দ হয়, তাহাকে
রেজোনেন্ট (resonant) বলে।
যকৃত, প্লীহা, পরিপূর্ণ পাকস্থলী, পরিপূর্ণ মূত্রথলি এবং কোন পিণ্ডের উপর আঘাত করিলে একরকম রুক্ষ
(Dull) শব্দ হয়।
আবার এই শব্দের অস্বাভাবিকতা পাওয়া গেলেই বুঝিতে হইবে ঐ অংগের কোন ত্রুট ঘটিয়াছে।
পরিপাকতন্ত্রের রোগের উপসর্গ
(Symtomps of Alimentary Disease)
ক্ষুধাহীনতা (Loss of appetite) : দীর্ঘদিন রোগে ভোগার পর, এন্টিবায়োটিক খাবার জন্য ক্ষুধাহীনতা দেখা
দেয়। ক্ষয়কারী রোগে, পাকস্থলীর ক্যানসারে, দুঃশ্চিন্তায়, মানসিক অবদমনে, সর্দি জ্বরের পরে, বেশি Inj.
Saline দিলে, পেটে কৃমি থাকিলেও ক্ষুধামন্দা হইতে পারে। আবার অত্যধিক এসিড হইবার কারণেও ক্ষুধা
কমিয়া যায়। কাজেই চিকিৎসক রোগীকে প্রশ্নের মাধ্যমে ক্ষুধাহীনতার কারণ বাহির করিবার চেষ্টা করিবেন।
ers
বুক জ্বালা (Hearturn) বুক পুড়ে উঠায় খাদ্য ঠিকমত হজম হয় না। পেটে (অম্ল) সৃষ্টি হয়। অম্ল (Acid)
উপরের দিকে উঠিলে বুক পড়ে উঠে এবং গলার মধ্যে জ্বালা Inrritation), আবার রিফ্লাক্স ইসোফিগাইটিস এর
জন্য বুকে স্টারনামের পিছনে জ্বালা যন্ত্রণা হয়।
বাধা (Pain) : অনেক সময় পাকাট্রিক রোগের উল্লেখযোগ্য উপসর্গ ব্যথা/বেদনা হয়। ব্যথা হইলে উহার অবস্থান, কতক্ষ
স্থায়ী থাকে, মৃদু না কঠিন ব্যথা, কখন কখন হয়, খাইলে বাড়ে না কমে ইত্যাদি তথ্য চিকিৎসকে জানিতে হইবে।
বমন (vomiting), বমি বমি ভাব (Nausia) : পাকান্ত্রিক গোলযোগে বমন/বমি বমি ভাব হইতে পারে যেমন
Intestinal obstrction (ইনটেস্টিন্যাল অবস্ট্রাকশন)। আরও অন্যান্য বহুবিধ রোগ আছে যার জন্য কমন
হইতে পারে- মিগ্রেইন, মেনিনজাইটিস ইত্যাদি। শিশুদের বেলায় রোগ সংক্রমণে বমি হইতে পারে। আবার High
Fever-এর মধ্যে Paracetamol জাতীয় বড়ি খাইলে বমি হয় বা হইতে পারে। গর্ভের প্রথম দিকে গর্ভিনীর
বমি হইতে পারে।
পেট ফাঁপা (Flatulance) : স্বাভাবিক অবস্থায় সামান্য পরিমাণ বায়ু খাবার ও পানির সহিত পাকস্থলীতে প্রবেশ
করে। ইহার মধ্যে কিছুটা ঢেকুর আকারে মুখ দিয়া বাহির হয় এবং কিছুটা অগ্রে চলে যায় এবং কিছু গ্যাস মলদ্বার
(Rectm) দিয়া বাহির হয়।
কোষ্টকাঠিন্য (Constipation) : কোষ্টকাঠিন্য কোন রোগ নয়, অনেক রোগের একটি লক্ষণ মাত্র। নিয়মিত
প্রত্যহ কোষ্ট পরিষ্কারের পরিবর্তে অনিয়মিত এবং বিলম্বিত মলের বর্হিগমনকে কোষ্টকাঠিন্য বলা হয়। এ সম্বন্ধে
আমরা পরে আলোচনা করিব।
বদ হজম (Dyspepsia) : পাকস্থলী ও পরিপাক পথে অস্বস্তিকে বদহজম বলে। বুক জ্বালা করা, মুখে টক উঠা,
পেট ভারী বোধ হওয়া, ঢেকুর তোলা ইত্যাদি লক্ষণকে বদহজমের আওতায় ফেলান যায়। বদহজমের লক্ষণ নিয়ে
কোন রোগী চিকিৎসকের নিকট আসিলে চিকিৎসকের প্রথম কর্তব্য পাকস্থলী, পিত্তাশয় বা হৃৎপিণ্ডের আঙ্গিক ব্যাধি
আছে কিনা তাহা দেহ পরীক্ষা বা প্রয়োজনীয় অনুসন্ধানী পরীক্ষার মাধ্যমে নির্ণয় করা।
ডায়রিয়া (Diarrhoea) : মলদ্বার (Rectum) দিয়ে খাদ্যের ভুক্তাবশিষ্টাংশের দ্রুত নিঃসরণ হওয়াকে ডায়রিয়া বা
উদরাময় বলে । ডায়রিয়া নিজে কোন রোগ নয়, অন্ত্রের ভিতর গোলযোগ বিশেষ কোন ব্যাধির একটি লক্ষণ মাত্র ।
খাবার গ্রহণে বীতস্পৃহা (Dysphagia) : খাদ্যের প্রতি আগ্রহ পূর্ব স্মৃতি এবং খাদ্যের মানের উপর। খাদ্যে প্রতি
বীতস্পৃহা পরিপাকতন্ত্রের ব্যাধির একটি লক্ষণ হইতে পারে। চিকিৎসকের কর্তব্য রোগীর খাদ্যের বীতস্পৃহার কারণ
অনুসন্ধান করা। এই কারণ কোন আঙ্গিকে বিচ্যুতি না হইয়া মানসিকও হইতে পারে। পৌঢ় রোগীদের ক্ষেত্রে অগ্ন্যাশয়ের
ক্যানসারও একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ। পাকস্থলীর ক্যানসারে কিংবা দীর্ঘদিন রোগ ভোগার পরও এমন হয় বা হইতে পারে।
ওজনহীনতা (Loss of weight) : ক্ষুধা মন্দা, বমি বমি ভাব বা বমির জন্য, অরুচি, কিংবা হজম ও বিশোষণ
ঘা হইবার জন্য হইতে পারে। ক্যানসার পাকাত্রিক কারণে ওজনহীনতার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ।

Md. Kamal Hossain

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

About Us

Stay with us by subscribing to our website to be the first to receive all the trusted news from around the world. https://dineralo24.com/

© All rights reserved © 2019 Dineralo24
Theme Customized By Theme Park BD