>

 মাদরাসা শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা কি?

 মাদরাসা শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা কি?

এম.এস.ফয়সাল।

মাদ্রাসা আরবী শব্দ । এর শাব্দিক অর্থ হচ্ছে বিদ্যালয়। সাধারণত মাদ্রাসার শিক্ষাকে ধর্মীয় শিক্ষার সাথে তুলনা করা হয়। কেননা এখানে ধর্ম ও ধর্মীয় বিষয়াদি নিয়ে বেশী আলোচনা হয়।যেখানে ইসলামি শিক্ষা দেওয়া হয়। যাহা চরিত্র গঠন করার মুল হাতিয়ার ।তাই এ ক্ষেত্রে মাদ্রাসা শিক্ষা অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ।
কেননা এই শিক্ষা শুধুই জ্ঞানর প্রসারতা এনে দেয়না ,পাশাপাশি উন্নত চরিত্র গঠন করতেও বেশ ভূমিকা রাখে

 মাদরাসা শিক্ষার প্রয়োজনীয়তাঃ

মানব জীবনের জন্য জ্ঞান অর্জন করা অত্যান্ত প্রয়োজনীয় বিষয়।  এই জ্ঞান যদি হয় কোন মাদ্রাসা হতে অর্জন কৃত ধর্মীয় জ্ঞান তাহেলে তো আর কোন কথাই নেই। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা সঃ বলেছেন প্রত্যেক মুসলমান নর-নারীর জন্য জ্ঞান অর্জন করা আবশ্যক । ছাত্র -ছাত্রীর উত্তম চরিত্র গঠনের জন্য মাদ্রাসা গুরুত্ব পূর্ণ ভূসমকা পালন করে থাকে।সে সফল ভাবে চারিত্রিক  উন্নতিতে সাধিত হয়। যেমন-বড়দের প্রতি সম্মান- উত্তম চরিত্রের একটি বিশষ দিক হচ্ছে বঢ়দের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা। ইসলামের শিক্ষা হচ্ছে “ বড়দের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা আর ছোট দের প্রতি স্নেহ করা” রাসুল সঃ ইরশাদ পরমান -যে ব্যক্তি বড়দের সম্মান করে না এবং ছোটদের স্নেহ করে না সে আমার উম্মত নয়” আর এই শিক্ষা ছাত্ররা অর্জন করে মাদ্রাসা হতে। কাজেই মাদ্রাসা শিক্ষায় শিক্ষিত হলে এই গুণটি সহজে অর্জন করা যায়।শিষ্ঠাচার-  চরিত্র মানব জীবরে অন্যতম সম্পদ। জীবনে চরিত্র অর্জন করতে হলে নিজেকে অনেক সাধনার মাঝে পতিত করতে হয়। যার চরিত্র নেই সে একটা পশুর সমান।যাকে পশুর সঙ্গে তুলনা করা হয়। যে ব্যক্তি মাদ্রাসায় লেখাপড়া করে সে নিজেকে কুরআন হাদিসে আলোকে গড়ে তুলে । ফলে সে উত্তম স্বভাবের এবং সু-চরিত্রে অধিকারী হয়ে ওঠে।একমাত্র মাদ্রাসা শিক্ষাই মানাব জীবনে উত্তম চরিত্র গঠনের কার্যকরী ভুমিকা পালন করতে সক্ষম।

আপনি দেখবেন আপনি ইউনিভার্সিটি জীবনে অনেক কিছু করতে চান, কিন্তু সময় বের করে আনতে পারেন না, সব সময় মনে হয় পিছিয়ে আছেন, ক্লাস, এসাইনমেন্ট, পরীক্ষা আপনাকে দম ফেলার সময় দিচ্ছে না। এজন্য সময় ম্যানেজমেন্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি কোন বিষয়ে গুরুত্ব দিবনে আর কিভাবে লেখাপড়া করবেন, সেটার একটা প্ল্যান ঠিক করে নিতে হবে। আপনি ফিজিক্সে এ+ চান না, এটা শুনলে ফিজিক্স স্যারের মন খারাপ হওয়া স্বাভাবিক। তাই স্যারকে এটা বলতে যাবেন না। তবে আপনার নিজের একটা প্ল্যান থাকতে হবে। পরীক্ষায় মার্ক পাওয়া আর জ্ঞান অর্জন ভিন্ন জিনিষ। মার্ক পাওয়ার জন্য একটু বুদ্ধি করে লেখাপড়া করলেই হয়। তবে সব সাবজেক্ট গুরুত্বপূর্ণ। এগুলোর বেসিক আপনার জীবনে কোন না কোনভাবে কাজে লাগবে। আমি শুধু বলবো এ আর এ+ এর মধ্যে বিস্তর পার্থক্য। আপনি একটা সাবজেক্ট খুব ভালোভাবে বুঝে এ পেতে পারেন, কিন্তু এ+ পাওয়ার জন্য আপনাকে অনেক বেশি শ্রম দিতে হবে। যদি আপনি দেখেন ফিজিক্সে সেই শ্রম দেবার থেকে প্রোগ্রামিংএ দিলে বেশি কাজ হবে, এটা আপনার ইচ্ছা হলে আপনি করতে পারেন, তবে এটা আপনার নিজস্ব মতামত। আমি এই বিষয়ের দায়ভার নিতে চাই না। আমি কিছু ট্রিক শেয়ার করলাম মাত্র।
চরিত্র গঠনে মাদ্রাসা শিক্ষার- বর্তমান বিশ্বে মাদরাসা শিক্ষা যথেষ্ঠ অবদান রাখতে সক্ষম হচ্ছে।যে সকল মানুষ খারাপ পখে পরিচালিত হচ্ছে তাদেরেকে আলোর পথে নিয়ে আসতে মাদ্রাসার শিক্ষায় শিক্ষিত ছেলেরা যথেষ্ঠ ভুমিকা পালন করছে।ফলে তারা অবেহেলিত পথ থেকে সঠিক পথে ফিরে আসতে সক্ষম হচ্ছ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!